Frequently Asked Questions (FAQ)

What is domestic and family violence?
Domestic and family violence is when someone intentionally uses violence, threats, force or intimidation to control or manipulate a partner, former partner, child, or family member. It’s not just being hurt physically. There are many different types of violence including physical, verbal, emotional, financial, sexual and psychological abuse. The violence is intentional and systematic and often increases in frequency and severity the longer the relationship goes on. It is about power and control and it is intended to cause fear. It does not have to occur within the home or between people who are living together.

How common is it?
Rates of domestic violence in Bangladesh are alarmingly high. A 2015 survey conducted by the Bangladesh Bureau of statistics found that over 70% of married women and girls have been subject to intimate partner violence. Despite this, the survey found that most victims had never told anyone and fewer than 3% took legal action. This comes in the face of Bangladesh’s national plan to foster “a society without violence against women and children by 2025.”

What are some signs of domestic and family violence?
There are many signs of an abusive relationship. The person subjected to violence might feel they have done something wrong, or something to cause the violence or abuse. This is not true. Violence and abuse is never ok. It is not the victim’s fault. And it is against the law.
The abused person might:

    • seem afraid of their partner or is always anxious to please their partner
    • stop seeing friends and family
    • have become anxious, depressed, withdrawn or have lost their confidence
    • have unexplained physical injuries
    • say their partner is jealous, possessive or has a bad temper
    • be reluctant to leave their children with her partner
    • feel they have to ask permission to do anything or spend money
    • say their partner controls their money
    • say their partner pressures or forces them to do sexual things

What are the impacts on adults?
Domestic and family violence has a significant impact on the short and long-term health and well-being of people subjected to abuse. The psychological consequences of violence can be as serious as the physical effects, and can include eating disorders, insomnia, generalized chronic pain, anxiety, depression and post-traumatic stress disorder.

Many victims of domestic and family violence find it difficult to function in their daily lives. Absences from work, due to injuries or visits to the doctor, can result in job loss, making them less able to leave their abusive situations. They may feel ashamed, see themselves as unworthy of love, and suffer from low self-esteem. Because of their feelings of low self-worth, they may withdraw from social activities and become isolated from friends and family.

What are the impacts on children and youth?
Children and young people from birth through to adolescence are significantly impacted when they experience or witness domestic and family violence. Exposure to domestic and family violence is a traumatic experience for children and shapes the way their brains develop.

Just like adults, children can experience and demonstrate stress and emotions in many different ways. Often children who experience trauma can be poorly understood and seen as misbehaving. The stress and emotions that children can experience as a result of the trauma of domestic violence can be expressed in a number of behaviours, including:

  • Difficulties with sleep and eating
  • Headaches and body aches
  • Easily distracted and have trouble focusing
  • Social anxiety and lack of confidence
  • Clingy or needy of primary caregiver
  • Self-harm or thoughts of suicide
  • Difficulty regulating emotions – i.e. becoming angry or aggressive with little warning
  • Low self esteem
  • Have difficulty making friendships and positive relationships
  • Struggling in a school environment
  • Finding it hard to problem solve
  • Using bullying behaviours
  • Finding empathising with others difficult

Children can, however, recover from the trauma associated with exposure to domestic violence when they are around adults who help create a safe and stable living environment, and nurture close and secure relationships with the people whom they are closest to.

Why don’t people leave?
There are many reasons why people subjected to violence choose to stay in relationships. Perhaps they are frightened to leave; feel they should stay for their children; they love their partner; or they have hope that things can be different. They may believe they have nowhere else to go, or they may be dependent on their violent partner for financial or personal care.

I don’t want to end the relationship. Can CIDV and its member organisations still help me?
If you decide to stay, CIDV Member Organisations can assist you with different kinds of support, legal advice, and safety planning and to apply for protection orders or other forms of legal remedies. The provisions can place restrictions on your partner to stop their use of violence, without making you leave the relationship or move out.

If I leave, where can I go?
CIDV Member Organisations and the website can provide advice on where you can go. There are shelters available for women or they can work with local authorities to help you make travel arrangements, connect you to family members or friends, or find a safe place to stay.

I don’t get hit or physically assaulted. Is this still domestic and family violence?

Domestic and family violence doesn’t just mean physical abuse, but also emotional, psychological, verbal, sexual and financial abuse. It is about power and control and is intended to cause fear. It includes threats, manipulation and controlling behaviour.
The non-physical elements are often not thought of as violence, but they are just as common and can be just as dangerous.

Do we have any laws in the country which directly tackle domestic violence?
The Domestic Violence (Prevention and Protection) Act, 2010 was enacted to provide for more effective protection of the rights of women guaranteed under the Constitution who are victims of violence of any kind occurring within the family and for matters connected therewith or incidental thereto.

Who are the family members and who does domestic violence affect?
According to the Domestic Violence (Prevention and Protection) Act, 2010, those who live or reside in the same house on the basis of blood relationship, marriage, adoption, or on the basis of partnership are family members. Domestic violence can have a knock-on effect and affect all those who live within the household, particularly children.

What remedies are available to women and children who are victims of domestic violence, according to the Domestic Violence (Prevention and Protection) Act, 2010?
According to this law, women and children of any age who are victims of violence can avail the remedies. No man will be able to receive any remedies under this law.

What types of remedies are available to the women and children who are victims of domestic violence?
A woman or child victim of domestic violence can get the following remedies through the court:

  • Interim / Ex: parte orders
  • Protection Order
  • Residential Order
  • Compensation Orders
  • Safe Custody Order
  • Order an on-the-spot investigation

Where can women and children go to seek remedies?
A woman or child victim of violence can go to any designated authority for remedy –

  • Enforcement Officer (currently in charge of all Upazila Women's Affairs Officers)
  • Local Police
  • Government and Non-Government Service Providers
  • Women’s Rights Organisations
  • Magistrates’ Court
  • CIDV Members Organisations

Who can file a domestic violence case in court?
In the case of violence, the person who is the victim of violence can file a case themselves, a family or friend, the enforcement officer or the service provider can also file the case on the victim’s behalf in the relevant Magistrates’ Court.

What can be done if any of the parties are aggrieved by the verdict or order given by the Magistrates’ court?
If any party is aggrieved or unsatisfied with the order passed by the Magistrates’ Court, they can file an appeal in the Chief Justice Magistrates’ Court / Chief Metropolitan Magistrate Court within the next 30 days.

What provisions are there to deal with parties who do not obey or break the protection order passed down by the court?
If any party violates or disobeys the protection order given by the court, the concerned court should be informed immediately. According to the Domestic Violence (Prevention and Protection) Act, 2010, a person violating a protection order or any of its conditions is liable to imprisonment for a term not exceeding 6 (six) months or a fine not exceeding 10 (ten) thousand takas or both.

What is the maximum punishment for a repeat offender of domestic violence?
According to the Domestic Violence (Prevention and Protection) Act, 2010, if a person repeats the same offence, there are additional penalties; He will be sentenced to not more than 2 years imprisonment and a fine of Tk. 1 (one) lakh or both.

Are there any punishments for those who lie, deceive, or make a false accusation in court?
According to the Domestic Violence (Prevention and Protection) Act, 2010, if a person makes a false accusation, there are provisions for imprisonment and fines; He will be sentenced to 1 (one) year imprisonment and a fine of Tk. 50 (fifty) thousand or both.

পারিবারিক সহিংসতা বিষয়ক সচরাচর জিজ্ঞাস্য

১) পারিবারিক সহিংসতা কি?

একই পরিবারে কোন ব্যক্তি কর্তৃক পরিবারের অপর কোন নারী বা শিশু সদস্যের উপর শারীরিক, মানসিক, যৌন নির্যাতন বা আর্থিক ক্ষতি করা হলে তা পারিবারিক সহিংসতা হিসেবে গণ্য হবে।

২) এটা কত সাধারণ?

বাংলাদেশে পারিবারিক সহিংসতার হার উদ্বেগজনকভাবে বেশি। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো কর্তৃক পরিচালিত ২০১৫ সালের সমীক্ষায় দেখা গেছে যে ৭০ % এর বেশি বিবাহিত নারী  ও কন্যারা পারিবারিক সহিংসতার শিকার হয়েছে। এটি সত্ত্বেও, সমীক্ষায় দেখা গেছে যে বেশিরভাগ নির্যাতনের শিকার নারীরা কখনও কাউকে বলেনি এবং ৩ % এরও কম  নারী আইনী পদক্ষেপ নিয়েছিল। এটি “২০২৫ সালের মধ্যে নারী ও শিশু নির্যাতনহীন একটি সমাজকে গড়ে তোলার" জাতীয় পরিকল্পনার পথে বাধা স্বরুপ।

 

৩) পারিবারিক ও পারিবারিক সহিংসতার কয়েকটি লক্ষণ কী কী?

সহিংসতাপূর্ন সম্পর্কের অনেক লক্ষণ রয়েছে। সহিংসতার শিকার ব্যক্তিটির ধারনা হয় তার দ্বারাই কোন ভুল করেছে, যা সহিংসতা বা অপব্যবহারের কারণ হতে পারে। এটি সঠিক না।   সহিংসতা এবং নির্যাতন কখনই ঠিক নয়। এটি ভুক্তভোগীর দোষ নয়। এবং এটি আইনের পরিপন্থী। সহিংসতার শিকার ব্যক্তিটি :

  • তার সঙগীকে ভয় পায় বা তার সঙ্গীকে খুশি করতে সর্বদা উদ্বিগ্ন থাকে

  • বন্ধুবান্ধব এবং পরিবার সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়

  • উদ্বেগ, হতাশাগ্রস্থ  হয়ে পরেন  বা আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেন

  • অপ্রকাশযোগ্য  শারীরিক আঘাত থাকে

  • নিজেকে বোঝায় তার সঙ্গী  তাকে নিয়ে হিংসা করে,বা খারাপ মেজাজে রয়েছে

  • তার সঙগীর নিকট  তার সন্তানদের ছাড়তে চাননা

  • তার কিছু করতে বা খরচ করতে অর্থ ব্যয় করার অনুমতি চাইতে হবে বলে মনে করেন

  • তিনি বলেন তার সঙগী তার অর্থ নিয়ন্ত্রণ করে

  •  তার সঙগী চাপ প্রয়োগ করে  বা বলপ্রয়োগ করে তার যৌন কাজ করতে বাধ্য করে

৪) প্রাপ্তবয়স্কদের উপর কী প্রভাব পড়বে?

পারিবারিক সহিংসতা নির্যাতনের শিকার ব্যক্তিদের স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্য এবং সুস্থতার উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলে। সহিংসতার শিকার ভুক্তভোগীর মানসিক পরিণতি শারীরিক প্রভাবগুলির মতো গুরুতর হতে পারে এবং এতে খাওয়ার ব্যাধি, অনিদ্রা, দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা, উদ্বেগ, হতাশা এবং পরবর্তী আঘাতজনিত স্ট্রেস ডিসঅর্ডার অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

পারিবারিক সহিংসতার শিকার অনেকেরই তাদের দৈনন্দিন জীবন যাপন কঠিন হয়ে যায়, চাকুরীক্ষেত্রে   অনুপস্থিত থাকে , শারীরিক নির্যাতনের শিকার হওয়া  অথবা চিকিত্সকের প্রায়ই যাওয়ার কারণে চাকরি হারাতে পারে, যার ফলে তারা তাদের আপত্তিজনক পরিস্থিতি ছেড়ে যেতে কম সক্ষম করে। তারা লজ্জা বোধ করে, নিজেকে ভালবাসার অযোগ্য হিসাবে দেখে। তাদের  নিজেদেরকৃত  অবমূল্যমানের অনুভূতির কারণে তারা সামাজিক কাজকর্ম থেকে সরে আসতে থাকে এবং বন্ধুবান্ধব এবং পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

৫) শিশু এবং যুবসমাজের উপর কী প্রভাব পড়বে?

শিশু এবং তরুনরা জন্ম থেকে কৈশোর পর্যন্ত উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত হয় যখন তারা  পারিবারিক সহিংসতার অভিজ্ঞতার শিকার হয়।  পারিবারিক সহিংসতা  বাচ্চাদের  সামনে প্রকাশ পেলে তাদের জন্য জন্য একটি বেদনাদায়ক অভিজ্ঞতা এবং তাদের মস্তিষ্কের বিকাশকে ক্ষতিগ্রস্থ করে।

বড়দের মতোই, বাচ্চারা বিভিন্ন উপায়ে স্ট্রেস এবং আবেগগুলি অনুভব করতে এবং প্রদর্শন করতে পারে। ট্রমাজনিত শিশুরা প্রায়শই দুর্বল থাকে এবং দুর্ব্যবহার করতে দেখা যায়। পারিবারিক সহিংসতার মানসিক আঘাতের ফলে শিশুরা যে চাপ ও সংবেদনগুলি অনুভব করতে পারে সেগুলি বেশ কয়েকটি আচরণে প্রকাশ করা যেতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে:

o   ঘুম এবং খাওয়া নিয়ে সমস্যা

o   মাথা ব্যথা এবং শরীরে ব্যথা

o   সহজেই বিভ্রান্ত হয়ে পড়ে এবং লক্ষ্য ধরে রাখতে পারেনা

o   সামাজিক উদ্বেগ এবং আত্মবিশ্বাসের অভাব

o   একরোখা বা নিজের প্রতি যত্নশীল না হওয়া

o   নিজের ক্ষতি বা আত্মহত্যার প্রবণতা

o   আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে অসুবিধা – অর্থাৎ সামান্য বিষয় নিয়ে রাগান্বিত বা আক্রমণাত্মক হয়ে উঠছে

o   নিজের প্রতি সম্মানের অভাব

o   বন্ধুত্ব এবং ইতিবাচক সম্পর্ক তৈরি করতে পারেনা

o   স্কুলের থাকাকালীন সময়ে লড়াই করে

o   সমস্যার সমাধান করা কঠিন মনে করে

o   গালিগালাজ করে

o   অন্যের প্রতি সহানুভূতি করেনা

বাচ্চারা পারিবারিক সহিংসতার মাধ্যমে তৈরি মানসিক দুরাবস্থা  থেকে পুনরুদ্ধার করতে পারে যখন তারা এমন প্রাপ্তবয়স্কদের আশেপাশে থাকে যারা নিরাপদ এবং স্থিতিশীল জীবনযাপন তৈরি করতে সহায়তা করে এবং যাদের কাছের মানুষ তাদের সাথে ঘনিষ্ঠ এবং সুরক্ষিত সম্পর্ক বজায় রাখতে পারে।

৬) কিছু মানুষ কেন চলে যেতে পারে না? 

সহিংসতার শিকার হওয়া ভুক্তভোগীদের  তাদের সহিংসপূর্ন সম্পর্কগুলিতে থাকার অনেকগুলি কারণ রয়েছে। মূলত তারা সম্পর্ক থেকে বের হয়ে আসতে ভয় পায় ; তাদের সন্তানদের জন্য উক্ত সম্পর্ক  থাকা উচিত বলে মনে করেন; তারা তাদের সঙ্গীকে ভালবাসে; অথবা তাদের সম্পর্ক ঠিক হওয়ার আশা করে। তারা মনে করে  যে তাদের আর কোথাও যাওয়ার নেই, বা তারা আর্থিক বা ব্যক্তিগত সুরক্ষার জন্য তাদের  নির্যাতনকারী সঙগীর উপর নির্ভরশীল হতে হবে।

৭) আমি সম্পর্ক শেষ করতে চাই না, সিআইডিভি এবং সদস্য সংগঠনগুলি কি এখনও আমাকে সহায়তা করতে পারে?

আপনি যদি সম্পর্ক বজায় সিদ্ধান্ত নেন, সিআইডিভি সদস্য সংগঠনগুলি আপনাকে বিভিন্ন ধরণের সহায়তা, আইনী পরামর্শ, এবং নিরাপদ পরিকল্পনা এবং সুরক্ষা আদেশ বা অন্যান্য ধরণের আইনী প্রতিকারের জন্য আবেদন করতে সহায়তা করতে পারে। আইনসমুহ আপনাকে আপনার সম্পর্ক ত্যাগ করা বা সরিয়ে না নিয়ে, আপনার সঙগীকে তার নির্যাতন বন্ধ করাবে।

৮) আমি যদি চলে যাই তবে আমি কোথায় যেতে পারি?

সিআইডিভি সদস্য সংগঠনগুলি আপনি কোথায় যেতে পারেন সে সম্পর্কে পরামর্শ দিতে পারে। নারীদের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র রয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সেখানে যেতে পারেন অথবা  পরিবারের সদস্য বা বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করে বা থাকার জন্য কোনও নিরাপদ জায়গা খুঁজতে  পারেন।

৯) আমি শারীরিকভাবে আঘাত পাই  না। এটা কি এখনও পারিবারিক সহিংসতা?

পারিবারিক সহিংসতার অর্থ কেবল শারীরিক নির্যাতন নয়, তবে মানসিক, মানসিক, যৌন এবং আর্থিক নির্যাতন। এটি  ভয় সৃষ্টির উদ্দেশে শক্তি এবং নিয়ন্ত্রণ প্রদশর্ন । এর মধ্যে হুমকি, কারসাজি এবং নিয়ন্ত্রণমূলক আচরণ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।অ-শারীরিক উপাদানগুলিকে প্রায়শই সহিংসতা হিসাবে ভাবা হয় না, তবে সেগুলিও বিপজ্জনকও হতে পারে।

 

১০) আমাদের দেশে পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধে কোন আইন আছে কি?

পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধে আমাদের দেশে ২০১০ সালে একটি আইন তৈরী করা হয়, যার নাম পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০।

 

১১) পরিবারের সদস্য কারা?

পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০ অনুযায়ী রক্ত সম্পর্কের, বিয়ের মাধ্যমে অথবা দত্তক গ্রহণের মাধ্যমে বা একই বাড়িতে অংশীদ্বারীত্বের ভিত্তিতে যারা থাকেন বা বসবাস করেন তারাই পারিবারের সদস্য।

 

১২) পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০ অনুযায়ী কারা প্রতিকার পেতে পারেন?

এ আইন অনুযায়ী, সহিংসতার শিকার যে কোন বয়সের নারী এবং শিশু প্রতিকার পেতে পারেন, কোন পুরুষই এ আইনের অধীনে কোনপ্রকার প্রতিকার পাবেন না।

 

১৩) সহিংসতার শিকার কোন নারী বা শিশু কি কি প্রতিকার পেতে পারেন?

সহিংসতার শিকার একজন নারী বা শিশু আদালতের মাধ্যমে নিম্নরূপ  প্রতিকার/আদেশ পেতে পারেন-

ক্স অন্তর্তবর্তীকালীন/একতরফা আদেশ

ক্স সুরক্ষা আদেশ

ক্স বসবাস আদেশ

ক্স ক্ষতিপূরণ আদেশ এবং

ক্স নিরাপদ হেফাজত আদেশ

ক্স সরেজমিনে তদন্তের আদেশ

 

১৪) সহিংসতার শিকার একজন নারী বা শিশু প্রতিকার পাবার জন্য কোথায় কোথায় যেতে পারেন?

সহিংসতার শিকার একজন নারী বা শিশু প্রতিকার পাবার জন্য নিম্নোক্ত যে কোন কর্তৃপক্ষের নিকট যেতে পারেন-

ক্স প্রয়োগকারী কর্মকর্তা (বর্তমানে সকল উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা দায়িত্বপ্রাপ্ত)

ক্স পুলিশ

ক্স সেবা প্রদানকারী সংস্থা (নারীর অধিকার নিয়ে যে সকল সংস্থা কাজ করে)

ক্স আদালতে (ম্যাজিস্ট্রেট আদালত)

 

১৫) সহিংসতার ঘটনায় আদালতে কে মামলা দায়ের করতে পারবেন?

সহিংসতার ঘটনায় সহিংসতার শিকার ব্যক্তি নিজে বা তার পক্ষে যে কেউ বা প্রয়োগকারী কর্মকর্তা বা সেবা প্রদানকারী সংস্থা সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করতে পারবেন।

 

১৬) ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের প্রদত্ত আদেশ বা রায়ে কোন পক্ষ সংক্ষুব্ধ হলে কি করণীয়?

যদি কোন পক্ষ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের প্রদত্ত আদেশ দ্বারা সংক্ষুব্ধ বা অসন্তুষ্ট হয় তাহলে তিনি পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে মুখ্য বিচারক ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে/মূখ্য মহানগর হাকিম আদালতে আপীল দায়ের করতে পারবেন।

 

১৭) আদালতের প্রদত্ত সুরক্ষা আদেশ কেউ না মানলে বা ভঙ্গ করলে কোন প্রতিকার আছে কি?

আদালতের প্রদত্ত সুরক্ষার আদেশ কোন পক্ষ ভঙ্গ করলে বা অমান্য করলে সংশ্লিষ্ট আদালতকে এ বিষয়ে জানাতে হবে। পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০ অনুযায়ী, কোন ব্যক্তি সুরক্ষা আদেশ বা এর কোন শর্ত ভঙ্গ করলে তিনি অনধিক ৬(ছয়) মাস কারাদন্ড বা অনধিক ১০ (দশ) হাজার টাকা অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন।

 

১৮) কোন ব্যক্তি একই অপরাধ পূণরায় সংঘটিত করলে অতিরিক্ত কোন শাস্তি আছে কি?

পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০ অনুযায়ী, কোন ব্যক্তি একই অপরাধ পূণরায় সংঘটন করলে তার জন্য অতিরিক্ত শাস্তির বিধান আছে; তিনি অনধিক ২ বছরের কারাদন্ড এবং ১ (এক) লক্ষ টাকা অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন।

 

১৯) কেউ মিথ্যা অভিযোগ করলে তার জন্য কোন শাস্তি আছে কি?

পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০ অনুযায়ী, কোন ব্যক্তি মিথ্যা অভিযোগ করলে তার জন্য জেল ও জরিমানার বিধান আছে; তিনি ১ (এক) বছরের কারাদন্ড ও ৫০(পঞ্চাশ) হাজার টাকা অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন।